মানিক হোসেন ও নুরনবী ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দিনাজপুর-৪ আসনে (খানসামা-চিরিরবন্দরে) লেভেল প্লেয়িং ও সুষ্ঠ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার আহব্বান জানিয়ে খানসামা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও প্যানেল চেয়ারম্যান এবং দিনাজপুর জেলা যুবদলের কার্যকরী সদস্য, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল খানসামা উপজেলা শাখার সাধারন সম্পাদক এটি.এম সুজাউদ্দিন লুহিন শাহ্ সাংবাদিকদের জানান, আমি একটি অবাধ সুষ্ঠ নির্বাচন ও সবার অংশগ্রহন মূলক নির্বাচন প্রত্যাশা করি।

সর্বোপরি আশা করি এবারের সংসদ নির্বাচনে আমি একটি শক্তিশালী বিরোধীদল জাতীয় সংসদে দেখতে চাই। যাতে গণতন্ত্র টেকসই ও গ্রহনযোগ্য ধারাবাহিকতা বজায় থাকে। এতে আমাদের দেশ সুনামের পর্যায়ে চলে যাবে।

তিনি সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, এ দেশের জনসাধারনের রায়ে বলে দিবে আগামী ৩০ ডিসেম্বর কোন দল সরকার গঠন করবে এবং কোন দল বিরোধী দল গঠন করবে। তিনি আরো জানান, দিনাজপুর-৪ আসনে বর্তমান এমপি পররাষ্টমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বৃহত্তর উত্তর অঞ্চলের বুদ্ধিজীবি ও মহানুভবতা একজন মানুষ। তিনি আমার উপজেলা পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা আমি ওনাকে শ্রদ্ধা করি।

তরুন ও যুব সামাজের পক্ষ থেকে মাননীয় মন্ত্রীকে আমি অভিবাদন জানাই। তবে বিএনপি আমার প্রথম ছাত্র রাজনীতি থেকে গ্রহনকারী দল আমি যতদিন বেচেঁ আছি ততদিন বিএনপির সাংগঠনিক সমর্থক হিসাবে থাকবো। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিরোধীদল থাকলে বিরোধীমত থাকবে কিন্তু লেভেল প্লেয়িং ও সুষ্ঠ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার উপযুক্ত সময় এখনো রয়েছে। নির্বাচন কমিশন মাননীয় ইসি যদি মনে করে তাহলে এ সময়ের মধ্যে সুষ্ঠ নির্বাচন সবার প্রত্যাশা পূরন করা সম্ভব।

এ দিকে দিনাজপুর-৪ আসনে বিএনপির দুজন মনোনীত প্রার্থী থাকায় তিনি আরো বলেন, সাবেক এমপি আলহাজ্ব আখতারুজ্জমান মিয়া প্রার্থী হিসাবে তৃণমূলে যথেষ্ট গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে।

তিনি দীর্ঘ দিন থেকে খানসামা চিরিরবন্দরের বিএনপিকে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। অন্যদিকে শিল্পপতি হাফিজুর রহমান হাফিজ বর্তমান সময়ের চিরিরবন্দরের বেকার সম্যসা সমাধানের বৃহত্তর অবদানকারী। তিনিও দীর্ঘ দিন ধরে জেলা বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত থেকে খানসামা-চিরিরবন্দরে বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনীতিক কর্মকান্ডে অংশ গ্রহন করেন।

তবে সাবেক এমপি আলহাজ্ব আখতারুজ্জমান মিয়া ও শিল্পপতি হাফিজুর রহমান হাফিজ খানসামা-চিরিরবন্দরের তৃনমুল বিএনপি ও সকল অঙ্গসংগঠনকে শক্তিশালী যুুগোপযোগি এবং ঐক্যবদ্ধ করার পরিবর্তে নিজেরাই জাতীয় সংসদ সদস্য হওয়ার লোভ-লালসায় বিভোর থেকে দলের ভিতর বিবেধ সৃষ্টি করেছে।

এছাড়া তারা বিগত উপজেলা ও ইউপি নির্বাচনে কোন ভুমিকায় রাখেনি। তাদের জন্য দিনাজপুর-৪ আসনে বিএনপির তৃনমূলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।