দুঃস্বপ্নের মতো একটি বিশ্বকাপ কাটানোর পর আর মাঠে দেখা যায়নি মাশরাফি বিন মর্তুজাকে। চার মাসেরও বেশি সময় ধরে ক্রিকেটের সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই বললেই চলে। অথচ আর কদিন পরেই মাঠে গড়াচ্ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। সেখানে মাশরাফি কেমন করবেন তা নিয়ে আছে নানা রকমের সংশয়। তবে মাশরাফির দল ঢাকা প্লাটুনের কোচ মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন ও বাংলাদেশ জাতীয় দলের অন্যতম নির্বাচক হাবিবুল বাশার মনে করছেন, দুঃসময় পেছনে ফেলে বিপিএলের আসন্ন আসরে খুব ভালো করবেন তিনি।

বাংলাদেশের ওয়ানডে সংস্করণের অধিনায়ক মাশরাফি। বিপিএলেও দারুণ সফল তিনি। আগের ছয়টি আসরের চারটির শিরোপাই উঠেছে মাশরাফির হাতে। কিন্তু বিপিএলের এবারের আসরের ড্রাফটে ঘটে এক বিস্ময়কর ঘটনা। সুযোগ পেয়েও প্রথম সাত রাউন্ডে মাশরাফিকে নেয়নি কোনো দল। অষ্টম ও শেষ রাউন্ডে গিয়ে তাকে দলে টানে ঢাকা প্লাটুন।

আলোচনা-সমালোচনার মাঝে বিপিএলকে সামনে রেখে সম্প্রতি ছন্দ হারিয়ে ফেলা মাশরাফি দিন দশেক আগে থেকেই অনুশীলন শুরু করেছিলেন। তবে কুঁচকিতে চোট পাওয়ায় তা চালিয়ে যেতে পারেননি। সঙ্গে যোগ হয়েছিল কোমরে ব্যথাও। তবে সুখবর হলো, সেরে উঠেছেন তিনি। শনিবার (৩০ নভেম্বর) থেকে শুরু করেছেন বোলিং অনুশীলন।

নির্বাচক হাবিবুলের মতে, মাশরাফি মূল সমস্যা ফিটনেস ঘাটতি। সেটা পুষিয়ে নিজের আগ্রহ, অভিজ্ঞতা ও সামর্থ্যের সমন্বয়ে বিপিএলে দারুণ কিছু করে দেখাবেন তিনি।

‘মাশরাফি কিন্তু অনেকদিন ধরে অনুশীলন করছে, কেউ জানে না। ফাঁকে ফাঁকে চুপি চুপি করে যাচ্ছে। মাশরাফির বোলিংয়ে, অভিজ্ঞতা বলেন বা সামর্থ্য, কখনও কমেনি। কখনও কমবেও না। ওর ফিটনেসটাই ইস্যু। ফিটনেস নিয়ে ও কাজ করছে। আমি কয়েক দিন আগে দেখলাম ওজনটাও কমিয়ে ফেলেছে। মনে হচ্ছে, ও খুব সিরিয়াস।’

‘আমি নিশ্চিত যে এই বিপিএলটায় ও খুব ভালো খেলবে। কারণ ওর খেলার আগ্রহটা এখনও মরে যায়নি। অনেকেই অনেক কথা বলে কিন্তু আমি মনে করি, ও এখনও ক্রিকেট খেলতে চায় এবং ও যখন খেলে, সেরাটাই খেলতে চায়। এটাই হল মাশরাফির সঙ্গে বাকিদের পার্থক্য। ওকে যে দল নিয়েছে, আমি মনে করি, তারা খুব ভালো কাজ করেছে। বিপিএলে ও ভালোই খেলবে। এটা আমাদের জন্য খুব ভালো খবর। বিপিএলের পরপরই হয়তো আমাদের সিরিজগুলো শুরু হয়ে যাবে, তখন সুস্থ ও তৈরি মাশরাফিকে আমরা পাব।’

ঢাকার কোচের দায়িত্বে আছেন সালাহউদ্দিন। এবারের বিপিএলে তিনিই একমাত্র স্থানীয় কোচ। তার অধীনে ও মাশরাফির নেতৃত্বে ২০১৫ সালের বিপিএলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। শিষ্যকে নিয়ে সালাহউদ্দিনের ভাবনাটাও প্রায় একই রকমের।

‘আমার কাছে মনে হয়, সে পুরো আসরে খেলবে এবং ভালোভাবে খেলবে। ভালো পারফরম্যান্সও করবে। যেহেতু আজকে প্রথম বল করল, ছন্দে হয়তো একটু সমস্যা হবে। কয়েক দিন বল করলেই ঠিক হয়ে যাবে। আর সবচেয়ে বড় সুবিধা যেটা আছে- অভিজ্ঞতা, এটা তো ফেলতে পারবেন না। যখন তারা খেলবে, শতভাগ দিয়েই খেলবে।’

‘আমার চেয়ে মাশরাফি নিজেই অনেক বেশি অনুপ্রাণিত। সে আজ (শনিবার) থেকে অনুশীলন শুরু করে নাই, অনেক দিন ধরেই ব্যক্তিগতভাবে ফিট হওয়ার জন্য অনেক কিছু করছিল। কেউ হয়তো দেখেনি। শরীরের ওজন অনেক কমিয়েছে। আমার মনে হয়, সে আমার চেয়ে কিংবা আমার দলের চেয়ে বেশি ভালো করার জন্য অনেক বেশি অনুপ্রাণিত।’