আগামী ২২-২৬ নভেম্বর কলকাতার ঐতিহ্যবাহী ইডেন গার্ডেনে ভারতের বিপক্ষে দিবারাত্রির টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ। সেই ম্যাচ স্মরণীয় করে রাখতে কোমর বেঁধে মাঠে নেমেছেন ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের (সিএবি) কর্তারা। ওই টেস্ট দেখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন তারা।

এছাড়া ভারত-বাংলাদেশের ঐতিহাসিক লড়াই প্রত্যক্ষ করার নিমন্ত্রণ পেয়েছেন কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার, রাহুল দ্রাবিড়সহ জীবিত প্রায় সব ভারতীয় অধিনায়ক। প্রথম টেস্ট খেলা টাইগার ক্রিকেটাররাও উপস্থিত থাকবেন। ম্যাচ উপভোগ করতে পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে সেখানে টেনে আনার চেষ্টা করছেন বিসিসিআই নয়া প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলি।

অতিথি অ্যাপায়নে রাজকীয় মধ্যাহ্নভোজনের আয়োজন করছে সিএবি। তাতে থাকছে ৫০ পদের খাবার। এছাড়া শেখ হাসিনাকে উপহার দেয়ার জন্য আন্তর্জাতিকমানের বিশেষ পোশাক প্রস্তুতকারককে দিয়ে বানানো হচ্ছে ডিজাইনার শাড়ি। সঙ্গে থাকবে শাল। এছাড়া বাংলার ঐতিহ্য মেনে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া হবে বিশ্ব বাংলার নানা উপহার।

বোর্ড প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর মাত্র কয়েক দিনের মধ্যে বাংলাদেশ ও ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্টকে দিন-রাতের টেস্ট খেলতে রাজি করান সৌরভ। এটি ছিল প্রথম চমক। ম্যাচ আয়োজনে তুমুল জাঁকজমক করে দ্বিতীয় চমকটা দিতে চাচ্ছে সিএবি।

মুখ্য উদ্দেশ্য- টেস্ট থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়া দর্শকদের পাঁচ দিনের ফরম্যাটে মাঠে ফেরানো। ইতিমধ্যে খুশি হওয়ার উপলক্ষ পেয়ে গেছেন সৌরভ। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর, ইতিপূর্বে অনলাইনে টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। বিক্রির হার আশাতীত ভালো। কয়েক ঘণ্টাতেই প্রায় সব টিকিটই বিক্রি হয়ে গেছে।

এ টেস্টের টস হবে সোনার মুদ্রায়। এজন্য নামি গহনা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠান কাজ করছে। অভ্যাগতদের স্মরণিকা হিসেবে দেয়া হবে রূপার মুদ্রা। ৬০টি বিশেষ টাইও তৈরি করা হচ্ছে ভিভিআইপি অতিথিদের জন্য। সব মিলিয়ে বাস্তবিক অর্থে মাসের শেষে ঐতিহাসিক ঘটনার সাক্ষী হতে চলেছে টেস্ট ক্রিকেট।