মন্জুর আলী শাহ  সম্পাদক চিরিরবন্দর বার্তা:

আপনার নামের পাশে সাবেক কথাটি লিখতে সত্যি অসম্ভব কষ্ট হচ্ছে ।

চিরিরবন্দর-খানসামা নির্বাচনী এলাকার অবহেলিত মানুষগুলো কখনোই চিন্তা করেনি তাদের ভোটে নির্বাচিত একজন সাধারণ মানুষ অসাধারণ ক্ষমতার অধিকারী হয়ে দেশের অন্যতম প্রভাবশালী মন্ত্রণালয় পররাষ্ট্র মন্ত্রীর দায়িত্ব পাবে।
দেশের বাঘা বাঘা রাজনীতিবিদদের পরাজিত করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আস্থায় জায়গা করে নিয়েছেন আপনি ।
দলমত নির্বিশেষে সকল শ্রেণীর মানুষের কাছে আপনি ছিলেন আস্থার প্রতিক।
দীর্ঘ ৫ বছর সফলতার সাথে নিজের উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করে বিস্বের সাথে পরিচয় করেছেন এক নুতন বাংলাদেশের ।
এলাকার সার্বিক উন্নয়ন ছিল চোখে পড়ার মতো।
বিশেষ করে দুই উপজেলায় বিদ্যুতের সাবস্টেশন
নির্মাণ,ফায়ার সার্ভিস স্টেশন নির্মাণ, বহু অপেক্ষার পার্বতীপুর দিনাজপুর চিরিরবন্দর সড়ক প্রসস্থকরণ,প্রতিক্ষার কাঁকড়া,আত্রাই সেতু, সহ অসংখ্য উন্নয়নের সাথে মিশে আছেন তিনি ।
এ রকম একজন সফল মানুষ পুনরায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী অথবা তার চেয়ে ভালো কিছু পাবেন এটাই ছিল প্রত্যাশা । কিন্তু মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর চিন্তাধারার সাথে হয়তো এ অঞ্চলের খেটে খাওয়া মানুষের প্রত্যাশার মিল হয়নি, নুতনদের নিয়ে চ্যালেঞ্জ নেয়া অভ্যস্ত আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী হয়তো চেয়েছেন অন্য কিছু ।
যতদিন তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন ততদিন আমাদের পরিচয় ছিল অন্যরকম,চিরিরবন্দর কিংবা খানসামাকে না চিনলে ও দেশের বিভিন্ন জায়গায় আমরা পরিচিত হয়েছিলাম পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এলাকার লোক বলে ।
আপসোস আজ আমাদের প্রিয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী মহাদয় কেবলই অতীত ।
নানা সফলতার কারণে কখনোই এই এলাকার মানুষ ভাবতেই পারেনি আমরা অন্তত এই
সরকারের আমলে মন্ত্রীবিহিন হবো?

কিন্তু বৃহত্তর স্বার্থের বিপরীতে আমাদের চাওয়া টা হয়তো খুব নগণ্য ।
দেশের বৃহৎ কল্যাণে প্রধানমন্ত্রীর চাওয়ার কাছে হয়তো আমাদের মন্ত্রী মহাদয় এখন সাবেকদের কাতারে,দেশের প্রচলিত নিয়ম আর প্রধানমন্ত্রীর আস্থার প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই আমরা হয়তো সামান্য হলেও সান্ত্বনা পাবো,কিন্তু এটাও বিশ্বাস করি প্রধানমন্ত্রী চাইলে আমাদের মাননীয় মন্ত্রী মহাদয়কে আরো বেশি সম্মানের জায়গা দিতে পারেন।
পরিশেষে এটাই প্রত্যাশা অতীতের চেয়ে ভালো কিছু চাই আমরা।ভালো কিছুর আশায় উদিত হোক আগামীর সূর্য ।

লেখক
মন্জুর আলী শাহ
সম্পাদক চিরিরবন্দর বার্তা
জেলা প্রতিনিধি
বাংলা টিভি