আওয়ামী লীগ ছেড়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেওয়ার খবরকে একেবারেই ভিত্তিহীন বলে মন্তব্য করেছেন আজিজুস সামাদ ডন। তার বিরুদ্ধে গুজব ছড়ানো হচ্ছে বলেও অভিযোগ ডনের।

বাংলাদেশের প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রয়াত আব্দুস সামাদ আজাদের ছেলে আজিজুস সামাদ ডন। বাবার মৃত্যুর পর থেকেই সুনামগঞ্জ-৩ (জগন্নাথপুর-দক্ষিণ সুনামগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চাচ্ছেন তিনি। তবে প্রতিবারই বঞ্চিত থাকতে হয় ডনকে।

এবারও এই আসনে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন বলে আলোচনা রয়েছে। এমন আলোচনার মধ্যেই আজিজুস সামাদ ডনের ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেওয়ার গুঞ্জন ওঠে। ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের গণফোরামে ডন যোগ দিচ্ছেন বলে রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন ওঠে।

এরআগে আওয়ামী লীগের আরেক সাবেক মন্ত্রী প্রয়াত শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে ড. রেজা কিবরিয়া গণফোরামে যোগ দেওয়ায় ডনের দলবদলের গুঞ্জনও ডালপালা মেলতে থাকে।

তবে বুধবার এমন খবরকে গুজব ও ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন আজিজুস সামাদ ডন।

তিনি বলেন, এটা একেবারেই ভিত্তিহীন, গুজব। আমি নেত্রীর উপরই আস্থা রাখতে চাই। নেত্রী যেমন বলবেন তাই হবে।

ডন বলেন, আমি দলের সিদ্ধান্তের বাইরে যাবো না। একান্ত যদি নির্বাচন করতেই হয় তবে আমার পরিবারের সাথে কথা বলে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেব। তবে অবশ্যই সেটা দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ীই হবে।

আজিজুস সামাদ ডন আরও বলেন, আমি নেত্রীর কথার বাইরে যাবার প্রশ্নই ওঠে না। আমার পারিবারিক ঐতিহ্য আওয়ামী লীগের রাজনীতির। দলের দুঃসময়ে আমরা দল ছাড়িনি, আমি আশা করি দল আমাকে মূল্যায়ন করবে।

ডন এমনটি দাবি করলেও আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, দুই দলের সাথেই আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন ডন। আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতেও লবিং অব্যাহত রেখেছেন। আবার গণফোরামের সাথেও আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছেন। আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেলে ও ঐক্যফ্রন্ট থেকে মনোনয়ন পাওয়ার নিশ্চয়তা পেলে ডন দল বদল করতে পারেন বলেও জানিয়েছে এই সূত্র।

যদিও বুধবার আলাপকালে ডন নিজেই এমন সম্ভাবনা উড়িয়েদিয়েছেন।

আব্দুস সামাদ আজাদের মৃত্যুর পর উপ নির্বাচনে ২০ দলীয় জোটের ব্যানারে এই আসনে সাংসদ নির্বাচিত হন জমিয়ত নেতা শাহিনুর পাশা চৌধুরী। আগামী নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হওয়ার লড়াইয়ে এগিয়ে আছেন তিনি। আর আওয়ামী লীগ থেকে এবারও এই আসনে এমএ মান্নান প্রার্থী হতে পারেন বলে জানা গেছে।

যদিও এখনও মনোনয়ন পাওয়ার জন্য লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন ডন। বুধবার রাতেও তিনি আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানমন্ডির কার্যালয়ে ছিলেন।

২০০৮ ও ২০১৪ সালের নির্বাচনে সুনামগঞ্জ-৩ থেকে সাবেক আমলা এমএ মান্নানকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়া হয়। বিজয়ী হয়ে অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীও হন মান্নান। এই দুই সংসদ নির্বাচনেই দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন ডন। মনোনয়ন না পেয়ে একবার স্বতন্ত্র প্রার্থীও হয়েছিলেন।