২০১৮ সালের মধ্যে নিয়োগ পরীক্ষা শেষ করার কথা ছিল>> জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা ও নির্বাচনের কারণে পেছাচ্ছে পরীক্ষা>> ১২ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিপরীতে আবেদন ২৪ লাখ ১৫৯৭>> রেকর্ড সংখ্যক আবেদনে জেলায় জেলায় কয়েক ধাপে পরীক্ষা

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা আবারও পেছাচ্ছে। সময় পেছানোর নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে পারে। মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

চলতি বছরের নভেম্বর মাসে শুরু হচ্ছে জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা। ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এ কারণে পরীক্ষার আয়োজনে হল সংকট দেখা দিতে পারে। এছাড়া আগামী বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে শুরু হবে এসএসসি পরীক্ষা। সবদিক বিবেচনা করে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে অনুষ্ঠিত হতে। মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টরা জাগো নিউজকে এমন তথ্য জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এ এফ এম ড. মনজুর কাদির বলেন, ‘আমরা চেয়েছিলাম ২০১৮ সালের মধ্যে প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা শেষ করতে। কিন্তু অক্টোবরে হল সংকট রয়েছে। আবার নভেম্বরে জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ডিসেম্বরে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এসব বিবেচনায় আমরা আগামী বছরের জানুয়ারিতে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা আয়োজনের যৌক্তিক সময় হিসেবে নির্ধারণ করেছি। আশা করছি, সব ঠিকঠাক থাকলে ওই সময়ের মধ্যে পরীক্ষা নেয়া হতে পারে।’

মন্ত্রণালয় সূত্রে আরও জানা গেছে, এবারের পরীক্ষা একসঙ্গে নেয়া হবে না। রেকর্ডসংখ্যক প্রার্থীর আবেদনের কারণে জেলায় জেলায় কয়েক ধাপে পরীক্ষা নেয়া হবে। হল পাওয়া-সাপেক্ষে ৩-৪টি করে জেলার পরীক্ষা একসঙ্গে অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া ওএমআর ফরমসহ অন্যান্য দ্রব্যাদি কেনাকাটায় সরকারি ক্রয় আইন (পিপিআর) অনুসরণ করতে গিয়ে গতিও একটু কমে গেছে।