সুমাইয়া আহমেদ, বিশেষ প্রতিনিধি : শীতের হাওয়ায় বইতে শুরু করেছে প্রকৃতিতে। এ বাতাসে বাড়ে চুলের শুষ্কতা। রুক্ষ চুল প্রাণহীন হয়ে ঝরে পড়ার পাশাপাশি মাথার ত্বক শুষ্ক হয়ে বাড়ে খুশকির প্রকোপ।

পর্যাপ্ত সময় ও যত্নের অভাবে অনেক সময় চুল রুক্ষ ও নিস্প্রাণ হয়ে যায়। কিন্তু একটু যত্ন নিলেই চুলের এই রুক্ষতা দূর করা সম্ভব। প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে বাড়িতে বসেই ভালো কন্ডিশনার ও চুলের প্যাক তৈরি করে স্বাস্থ্যজ্জ্বল চুল ফিরিয়ে আনা সম্ভব-

১. নারিকেল তেল ড্যামেজ চুল খুব ভালোভাবে সারিয়ে তোলে। শ্যাম্পু করার ১ঘন্টা আগে মাথায় নারিকেল তেল দিয়ে গরম তোয়ালে দিয়ে মাথা মুড়ে নিন বা আগের রাতে হালকা গরম করে মাথায় ম্যাসাজ করে নিন । তারপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

২. শুষ্ক চুলের জন্য মধু অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপকরণ। ৩ টেবিল চামচ মধু ও ৫ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে মাথায় ভালোভাবে লাগান এবং ১৫-৩০ মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলুন । চাইলে এতে একটা ডিমের সাদা অংশ ব্যাবহার করতে পারেন। এতে চুল আরো কোমল হয়।

৩. ২ টেবিল চামচ এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েলের সঙ্গে ১ টেবিল চামচ গ্লিসারিন মেশান। ১ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে নেড়ে নিন। মিশ্রণটি ব্রাশের সাহায্যে চুলের গোড়ায় লাগিয়ে ৫ মিনিট ম্যাসাজ করুন। শাওয়ার ক্যাপ পরে নিন। ১ ঘণ্টা পর মাইলদ শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার ব্যবহার করলে দূর হবে চুলের রুক্ষতা।

৪. কলা শুষ্ক চুলের জন্য কন্ডিশনার হিসেবে কাজ করে। একটি পাকা কলার সঙ্গে এক চা চামচ মধু, আধা চা চামচ দুধের সর ও এক চা চামচ আমন্ড অয়েল মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে পুরো চুলে লাগিয়ে রাখুন। একঘণ্টা পর চুল ধুয়ে ফেলুন।

৫. চুল ও মাথার ত্বকের শুষ্কতা দূর করতে অ্যালোভেরার জুড়ি নেই। টাটকা অ্যালোভেরা জেল চুলের গোড়ায় ম্যাসাজ করুন। ২০ মিনিট অপেক্ষা করে ভেষজ শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।