শুক্রবার(২৬ অক্টোবর) বিকালে শিলং জেলা ও দায়রা আদালতের বিচারক তার বিরুদ্ধে আনা অনুপ্রেশের মামলার  রায়ে বেকসুর খালাস দেন এবং দ্রুত তার নিজ দেশ বাংলাদেশে প্রত্যাবর্তনের নির্দেশও দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে সালাউদ্দিন আহমেদ সময়নিউজ.টিভিকে  টেলিফোনে জানান,‘আমি ন্যায় বিচার পেয়েছি। দ্রুত দেশে ফেরত যেতে চাই।’

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ১১ মে ভারতে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে সালাহউদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে মামলা করে শিলং পুলিশ। প্রায় সাড়ে তিন বছর বিচার চলার পর চলতি বছরের ১৩ আগস্ট এই মামলার বিচারিক কার্যক্রম শেষ হয়। এরপর অবশ্য চারবার মামলার রায় ঘোষণার তারিখ পেছায়। অবশেষে শুক্রবার এই রায় দেওয়া হলো। সালাহউদ্দিন আহমেদের আইনজীবী হিসেবে ছিলেন এপি মহন্ত।

অনুপ্রবেশের অভিযোগে আটক হবার প্রায় দুই মাস আগে থেকে বাংলাদেশে ‘নিখোঁজ’ ছিলেন সালাউদ্দিন।

২০১৫ সালের ১১ মার্চ শিলং শহরের গলফ মাঠ থেকে পুলিশ সালাউদ্দিনকে আটক করেছিল। অসংলগ্ন কথাবার্তা শুনে শিলং পুলিশ প্রথমে তাকে একটি মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করায়। তবে চিকিৎসকরা জানান মানসিক নয়, বিএনপি নেতা শারীরিকভাবে অসুস্থ। তাই তাকে শিলং সিভিল সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। পরে তার পরিবারের সদস্যদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে নর্থ ইস্টার্ন ইন্দিরা গান্ধী রিজিওনাল ইনস্টিটিউট অব হেলথ অ্যান্ড মেডিকেল সায়েন্সেস হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

সূত্র: সময়টিভি।