নিজস্ব প্রতিবেদক: জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার রোববার সকালে শুরু হয়েছে। গুলশানে বিএনপির চেয়ারপাসনের কার্যালয়ে এই সাক্ষাৎকার চলছে। সাক্ষাৎকার শেষে যারা দলের চূড়ান্ত প্রার্থী হিসেবে মনোনীত হন তাদের ফরমে স্বাক্ষর করছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আগে এই ফরমে স্বাক্ষর করতেন বেগম খালেদা জিয়া।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। অন্যদিকে, লন্ডনে অবস্থান করছেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। ফলে এই দুই হাইকমান্ডের অনুপস্থিতিতে  দলীয় মনোনয়ন ফরমে স্বাক্ষর করছেন দলটির মহাসচিব।

বিএনপির মনোনয়ন ফরমে লেখা আছে, আমি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মহাসচিব, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল, বিএনপি। দলের নিবন্ধন নম্বর ৭। এতদ্বারা নির্বাচনি এলাকা …, জেলা…,  হতে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য প্রার্থীরূপে … কে,  ভোটার নম্বর….. কে দলের মনোনয়ন প্রদান করছি।

উল্লেখ্য, গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ (আরপিও) বলা আছে, যে কোনও দলের মনোনয়ন ফরমে দলের সভাপতি,  সাধারণ সম্পাদক ও দলীয় মনোনীত প্রার্থী স্বাক্ষর করবেন।

বিএনপি সূত্র জানায়, গত ২০০৯ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন ফরমে স্বাক্ষর করেছিলেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এবার তিনি কারাগারে থাকায় মির্জা ফখরুল স্বাক্ষর করেছেন।

নীলফামারী-৪ বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী বিলকিস ইসলাম বলেন, ‘দলের মনোনয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে সব প্রার্থীকে মনোনয়ন ফরম নির্বাচন কমিশনে জমা দিতে বলা হয়েছে।  দল যাকে মনোনয়ন দেবে, তিনি ছাড়া অন্যসব প্রার্থীকে নিজেদের মনোনয়ন ফরম প্রত্যাহার করে নিতেও বলা হয়েছে।’

নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী,  একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন ফরম দাখিলের শেষ তারিখ ২৮ নভেম্বর । প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৯ নভেম্বর । আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

আরপিও অনুযায়ী,  কোনও দল চাইলে একাধিক ব্যক্তি দলীয় মনোনয়ন ফরম জমা দিতে পারবেন। তবে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আগে দল থেকে কাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে, তা জানাতে হবে। দলীয় মনোনীত ব্যক্তি ব্যতীত অন্যদের প্রার্থিতা অনায়াসে বাতিল হয়ে যাবে।