এস.এম.রকি,নিজস্ব প্রতিবেদক :

 

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে এই মুহুর্তে জনমনে তৈরি হয়েছে একটাই প্রশ্ন, দলীয় প্রতীক বড় দলগুলো কাকে দিচ্ছে? আবার এ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনাও চলছে জমনে। তবে আওয়ামী লীগের এই মনোনয়ন প্রত্যাশীরাই আগামী নির্বাচনকে ঘিরে প্রচার -প্রচারনায় এগিয়ে রয়েছেন। আর সরকারী দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কৃষি ও সমবায় বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য,কর্মীবান্ধব নেতা আবু হুসাইন বিপু স্থানীয়দের আস্থার প্রতীক আর বীরগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সদস্য আবু হুসাইন বিপুর জনপ্রিয়তা তৃণমুলে বেড়েছে বলে জানা গেছে।

জাতীয় সংসদের দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনটি অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ন ও আওয়ামী লীগের ঘাটি হিসাবে পরিচিত। স্বাধীনতার পর হতে ১বার জাতীয় পাটি ও ১বার জামায়াত ছাড়া বেশীরভাগ সময়ে এ আসনটি আওয়ামীলীগের দখলে ছিলো।

দিনাজপুর-১ আসনে মনোনয়ন পাওয়ার জোরালো সম্ভাবনা রয়েছে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবু হুসাইন বিপুর। বীরগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সদস্য বিপু স্থানীয় নেতাকর্মীদের মাঝে বেশ জনপ্রিয়। অন্যদিকে বর্তমান সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপালের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ এবং এর সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনগুলো। তারা গোপালকে এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করেছে। ফলে আসনটিতে এবার বিপুকে নৌকার কাণ্ডারি করার সম্ভাবনা বেশি।

এই সুযোগে ১১তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালের সাবেক সাধারন সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদ্য সাবেক সহ সভাপতি আবু হুসেইন বিপু আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে নিজের অবস্থান শক্ত করেছেন।

দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনে নির্বাচনী এলাকার সাধারণ মানুষ বলছেন, এই আসনে মেধাবী ,তরুণ এবং কেন্দ্রীয় নেতা আবু হুসাইন বিপু এমপি হলে এ সব অঞ্চলের ব্যাপক উন্নয়নের সম্ভাবনা রয়েছে।

মেধাবী এই জনপ্রিয় কেন্দ্রীয় নেতা আবু হুসাইন বিপু তার নির্বাচনী এলাকায় নিয়মিত গণসংযোগ করছেন এবং নৌকা প্রতীকে ভোট চাইছেন। আবু হুসাইন বিপু বলেন, দিনাজপুর-১ আসনের মানুষ পরিবর্তন চায়। দল আমাকে মনোনয়ন দিলে আমি তাদের প্রত্যাশা পূরণে কাজ করবো।

তিনি আরো বলেন,জনগণকে সাথে নিয়ে ,জনগণের ভালোবাসা নিয়ে বীরগঞ্জ এর মানুষের জীবন মান উন্নায়নের জন্য কাজ করতে চাই।বরাবরের মত বীরগঞ্জে নৌকাকে জয়ী করতে চাই।

তিনি দীঘদিন ধরে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের রাজনিতির পাশাপাশি দিনাজপুর-১ আসনে মানুষের পাশে থাকার কারনে এলাকায় তার জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে। জাতীয় সহ বিভিন্ন কর্মকান্ডে জড়িত থাকার কারনে গ্রামগঞ্জের ভোটাদের ও তরুনদের কাছে আস্থাভাজন হয়েছেন তিনি।