নিজস্ব প্রতিবেদক মানিক হোসেন চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) :

দিনাজপুর-৪ (খানসামা-চিরিরবন্দর) আসনে এখনো জনপ্রিয়তায় শীর্ষে বর্তমান সংসদ সদস্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী,এমপি।

তবে আগামী নির্বাচনে বিভিন্ন মনোননয়ন প্রত্যাশী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে আলোচনায় আসলেও খানসামা-চিরিরবন্দরের মানুষ মনে করেন একজন সৎ ব্যক্তি, দক্ষ মন্ত্রী এবং দিনাজপুরের উন্নয়নের রূপকার হিসেবে আবারও এ এইচ মাহমুদ আলীকে দিনাজপুরে প্রয়োজন।

দলের বেশিরভাগ নেতা-কর্মীও চান এটাই। নেতা-কর্মীদের ধারণা, আবুল হাসান মাহমুদ আলী যদি আবারও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেন তবে দিনাজপুর-৪ আসনে আওয়ামী লীগ বিজয়ী হবে এটা প্রায় নিশ্চিত।

আর সেই সঙ্গে যদি আওয়ামী লীগ আবারও সরকার গঠন করে তবে আবারও মাহমুদ আলী ই পররাষ্ট্রমন্ত্রী হবেন। এমনকি তিনি রাষ্ট্রপতিও হতে পারেন বলে অনেকে মনে করেন। ফলে আলোকিত দিনাজপুরের তৈরির যে স্বপ্ন তিনি বুকে লালন করেন তা সহজেই বাস্তবায়ন হবে। সেই সঙ্গে তার অসম্পূর্ণ কাজগুলো সম্পন্ন হবে।

এ ছাড়া খানসামা- চিরিরবন্দর উপজেলায় অন্যান্য সময়ের চেয়ে গত ১০ বছরে ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হওয়ায় সাধারণ মানুষের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি রয়েছে বিশেষ দুর্বলতা।

এ আসনের জনগণের কাছে তিনি একজন সৎ এবং নিষ্ঠাবান মানুষ হিসেবে পরিচিত। তার হাত ধরেই এ দু’উপজেলা ছাড়াও দিনাজপুর জেলায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ক্রীড়া ও যোগাযোগ ব্যবস্থার।

সর্বশেষ তাঁর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় খানসামা-চিরিরবন্দর-বীরগঞ্জে আঞ্চলিক মহাসড়ক, জয়ন্তিয়া ব্রীজ সহ দু’উপজেলার প্রায় ছোট-বড় ১০ টি ব্রীজ, প্রায় ৪শত কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরন, প্রায় ২০ টির অধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একাডেমিক ভবন, টিএসসি ভবন সহ বিভিন্ন কাজ চলমান রয়েছে।

আবার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রচেষ্টায় চিরিরবন্দরে বেকারত্ব দূরীকরনে বিভিন্ন কোম্পানিকে উদ্ধৃত্বকরণ করে ইপিজেড স্থাপন করলে খানসামা উপজেলায় নতুন করে তা করার পরিকল্পনা রয়েছে। আর এসব কাজ চলমান ও বেকারত্ব দূরীকরনে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিকল্প ভাবছেন না সাধারন জনগণ।

তাই উন্নয়নের স্বার্থে সাধারণ জনগণও চান মর্যাদাপূর্ণ দিনাজপুর-৪ আসন থেকে আবারও যাতে আবুল হাসান মাহমুদ আলীই মনোনয়ন পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে এ আসনটিকে আবারো ভিআইপি আসনে পরিণত করেন।

এদিকে আওয়ামী লীগ সূত্র জানিয়েছে, দলের হাইকমান্ড ও দলীয় নেতা-কর্মীদের পছন্দ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে। তাই ইতিমধ্যে তাকে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতে দলের হাইকমান্ড থেকেও বলে দেওয়া হয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে।