সদ্য অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার আগেই ‘ঘ’ ইউনিটের প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে সেই পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে গত মঙ্গলবার দুপুর ১২টা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের সামনে আমরণ অনশন শুরু করেন আখতার হোসেন।

আকতার হোসেনের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে আজ বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের ব্যানারে মানববন্ধন করে পরিক্ষা বাতিলের দাবি জানায় শিক্ষার্থীরা। 

সরকার সমর্থক ছাত্রলীগও প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে ‘যাচাই বাছাই সাপেক্ষে’ পুনরায় পরীক্ষা নেওয়াসহ চার দফা দাবি জানিয়েছে। 

টানা তিন দিন আমরণ অনশন করার পর আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অনশনরত আকতারকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রসাশনের পক্ষ থেকে প্রথম দেখতে  আসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রাব্বানী এসময় সাথে ছিলেন ছাত্রলীগের ঢাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইন।

আকতারের দাবিকে ‘স্বাগত জানিয়ে’ প্রক্টর গোলাম রাব্বানী বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা করার প্রতিশ্রুতি দেন।

এরপর অন্যদের নিয়ে তিনি আকতারকে ডাবের পানি খেয়ে অনশন ভাঙার অনুরোধ করতে থাকনে। আকতার তাতে রাজি না হলেও তারা চেষ্টা চালিয়ে যান৷

এক পর্যায়ে আকতার হাত পা ছোড়াছুড়ি আর চিৎকার শুরু করেন৷ তখন কয়েকজন মিলে ধরাধরি করে হাত থেকে স্যালাইনের ক্যানেলা খুলে তাকে রিকশায় তোলেন।

রিকশায় তোলার পরও আকতার চিৎকার করতে থাকেন। ওই অবস্থায় তাকে নিয়ে যাওয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে। প্রক্টর এবং অন্য শিক্ষকরাও তার সঙ্গে যান।

আক্তার হোসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি জিয়া হলের আবাসিক ছাত্র।

মেধাবি প্রতিবাদকারী এই শিক্ষার্থীর বাড়ি রংপুরে। তিনি রংপুরের ধাপ সাতগাড়া বায়তুল মুকাররাম কামিল মাদ্রাসা থেকে আলিম পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন।