মোঃ নুরনবী ইসলাম, নিজস্ব প্রতিবেদক

দিনাজপুরের খানসামায় মামার বিরুদ্ধে ৩ সন্তানের জননী ভাগনীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি উপজেলার ভেড়ভেড়ী ইউনিয়নের টংগুয়া গ্রামের মাদারডাঙ্গা এলাকায় ঘটেছে।

ভুক্তভোগী নারী ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মাদারডাঙ্গা এলাকার সোনা মিয়া (৫৫) দীর্ঘদিন ধরে তার পাশের বাড়িতে অবস্থানকারী ভাগনীকে খারাপ প্রস্তাব দিয়ে উত্যক্ত করে আসছিল। তিনি সম্পর্কে মামা হওয়ায় লজ্জায় কাউকে বিষয়টি জানাতেও পারেন নি। গত ১৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যার পর ভাগনীর স্বামী ও তার সন্তানেরা ননদের বাড়িতে অনুষ্ঠানে যাওয়ায় ফাঁকা বাড়ি পেয়ে লম্পট মামা ফোনে কয়েকবার খারাপ প্রস্তাব দেয়। এতে ভাগনী প্রস্তাবে রাজি না হয়ে ফোন বন্ধ করে রেখে এশার নামাজের জন্য ওজু করে ঘরে প্রবেশের সময় দুশ্চরিত্র মামা পেছন দিক দিয়ে মুখ চিপে ধরে জাপড়ে ও টানা হেচড়া করে ঘরে নিয়ে যেয়ে ধর্ষণের জন্য তার কাপড় ছিড়ে ফেলে। এমতাবস্থায় ভাগনি নিজেকে রক্ষা করতে মামা সোনা মিয়ার হাতে কামড় দেয়। এতে মামা তাকে ছেড়ে দিলে ভাগনি চেচামেচি করে। চিৎকার শুনে আশেপাশের বাড়ি থেকে লোকজন আসলে লম্পট মামা তাকে ছেড়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। এরপর বিষয়টি নিয়ে এলাকার দেউনিয়ারা বসে মামা তার ভুল স্বীকার করে মাফ চায় ও লাখ টাকার প্রস্তার দিলেও ভাগনি তা প্রতাক্ষাণ করে লম্পট মামার বিচারের দাবিতে আইনের সরনাপন্ন হয়।

অভিযুক্ত মামা সোনা মিয়া ফোনে খারাপ প্রস্তাব দেওয়ার বিষয়টি প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে আমতা আমতা করে তা স্বীকার করেন। তবে ঘটনাটির বিষয়ে তিনি অস্বীকার করেন।

এ বিষয়ে অফিসার ইনচার্জ শেখ কামাল হোসেন বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর তা তদন্তাধীন রয়েছে। এ ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।