আকরাম হোসেন খান নাঈম:

নরসিংদী শহর থেকে ৩৫ কিলোমিটার উত্তরে বেলাবো উপজেলার ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে অবস্থিত আড়াই হাজার বছরের প্রাচীন জনপদ উয়ারী ও বটেশ্বর দুটি গ্রাম। উয়ারী বটেশ্বর এ রয়েছে আদি ইতিহাস।

প্রত্নতত্ত্ববীদ ও গবেষকগণ ধারনা করেন যে এটি প্রায় তিন হাজার বছর পূর্বের প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শন এখানে প্রচীন শিলালিপি মূদ্রাসহ অনেক সভ্যতার নিদর্শন পাওয়াগেছে।

বাংলাদেশ প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের তত্বাবধানে এখনো খনন কাজ চলছে। এখানে পর্যটকদের জন্য রেষ্ট হাউস করা হচ্ছে। এ অঞ্চলে প্রাগৈতিহাসিক যুগ থেকে শুরু করে তাম্র প্রসার যুগ, আদি-ঐতিহাসিক যুগ, প্রাক-মধ্যযুগ ও মধ্যযুগে নরসিংদী জেলার উয়ারী-বটেশ্বর অঞ্চলে মানব-সভ্যতা বিকাশ লাভ করেছিল তার নিদর্শন পাওয়া গেছে। এটি বাংলাদেশের সর্বপ্রাচীন জনপদ।

অসম রাজার গড় নামে এটি সমাধিক পরিচিত। আড়াই হাজার বছরের প্রাচীন প্রত্নস্থান নরসিংদীর উয়ারী-বটেশ্বর। এ পর্যন্ত ৫০টি প্রত্নস্থান উৎখননের পর মাটিচাপা দিয়ে রাখা হয়েছে। এই নিদর্শনগুলো দেখার সুযোগ করে দিতে স্থাপন করা হয়েছে উয়ারী-বটেশ্বর দুর্গনগর উন্মুক্ত জাদুঘর। মুহাম্মদ হাবিবুল্লা পাঠান বলেন, এখানে উৎখননের মাধ্যমে পাওয়া গেছে অনেক দুর্লভ নিদর্শন।

এখানে খনন করা জায়গা তো অনেক প্রাচীন। তাই সংরক্ষণের স্থায়ী ব্যবস্থা ছাড়া খোলা রাখা যায় না। সে জন্য দর্শনার্থীরা এসে এগুলো দেখতে পান না।

এখানকার আবিষ্কৃত প্রত্নস্থাপনা ও প্রত্নসম্পদের ব্যাখ্যাসহ ছবি এবং তার উন্মুক্ত জাদুঘর প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এখানে এলে লোকজন উয়ারী-বটেশ্বরের গুরুত্ব কতখানি তার ধারণা পাবেন। দর্শনার্থীদের জন্য প্রতি ঘণ্টায় দেখানো হচ্ছে উয়ারী-বটেশ্বর নিয়ে নির্মিত বিভিন্ন প্রামাণ্যচিত্র।