বাঙালিয়ান ডেক্স:

 

বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতুতে এক পুলিশ উপ-পরিদর্শকের বিরুদ্ধে চাঁদা দাবির অভিযোগ করেছে গাড়িচালকরা। চাঁদা না দেওয়ায় চালককে মারধর করার অভিযোগ এনে বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতু দিয়ে সব ধরণের যানচলাচল বন্ধ করে দেয় তারা।

বগুড়াগামী ট্রাকের চালক বকুলকে বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নুরে-এ আলম চাদা না পেয়ে গাড়িচালককে মারধর করেন বলে অভিযোগ করেন গাড়িচালকরা।

শনিবার সকাল ৬টার দিকে বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে অন্য গাড়ির চালকরা সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন শুরু করে। এতে বন্ধ হয়ে পড়ে ঢাকা-টাঙ্গাইল পথে যান চলাচল। বর্তমানে সেতু এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরে সোয়া এগারোটার দিকে যানচলাচল স্বাভাবিক হয়।

আন্দোলনকারী চালকদের অভিযোগ, পুলিশ ট্রাকটি তল্লাশির নামে চাঁদা দাবি করে। ওই ট্রাকটি আটক করে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নুর-এ আলম। তাকে চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে চালককে তিনি মারধর করেন। এতে ওই চালকের চোখ মারাত্মক জখম হয়েছে। এসময় তারা দোষী পুলিশ কর্মকর্তার শাস্তি দাবি করেন।

তবে চাঁদা দাবির বিষয়টি অস্বীকার করেছেন  বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোশারফ হোসেন। তিনি বলেন, সকালের দিকে বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব  গোলচত্ত্বরে পুলিশ তল্লাশি করছিল। এসময় ট্রাকের চালকের সাথে বাকবিতণ্ডা বাধে। এরপরেই অন্যান্য চালকরা সড়ক অবরোধ করে রাখে। অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য নুরে-এ আলমকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। পরে অবরোধকারীরা সোয়া এগারোটার দিকে অবরোধ তুলে নিলে যানচলাচল স্বাভাবিক হয়।

এ বিষয়ে টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শরিফুল আলম বলেন, ‘অভিযুক্ত পুলিশ সদস্য নুরে-এ আলমকে তাৎক্ষণিক সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আইনি প্রক্রিয়া অনুসরণ করে তাকে চূড়ান্তভাবে বরখাস্ত করা হবে। আহত ট্রাক চালক বকুলের সব চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করা হবে। এছাড়া টাঙ্গাইলের সীমানায় কোনো পুলিশ সদস্য চাঁদাবাজি করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে ‘

 

ঢাকাটাইমস