মোহাম্মদ মানিক হোসেন:

দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার পশ্চিম মহাদানী চাপাইল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে চাকুরীর প্রলোভন দেখিয়ে ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় উপজেলার বড়বাউল গ্রামের বাসিন্দা ভুক্তভোগী মো. সুলতান আলী টাকা ফেরত চেয়ে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার বরাবর একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের জানুয়ারী মাসে প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম ছেলের চাকুরী দেয়ার কথা বলে সুলতান আলীর কাছ থেকে সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা নেয়। পরে স্কুলের পিয়নের চাকুরী থেকে শুরু করে যে কোন চাকুরী দেয়ার প্রতিশ্রæতি দিয়ে দিনের পর দিন কালক্ষেপন করে। এভাবে ২০১৬ থেকে শুরু করে বছরের পর বছর পেরিয়ে গেলে প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম টাকা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করতে শুরু করে। পরে ভুক্তভোগী সুলতান আলী ১৪ ফ্রেরুয়ারী ২০১৯ সালে তার বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা করেও টাকা ফেরত না পেয়ে সুলতান আলী তার বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগপত্র বিভিন্ন জায়গায় দাখিল করেন।

সুলতান আলী জানান, তার ছেলে সোহেল রানার চাকুরীর জন্য টাকা দিয়েছিলেন তিনি। এছাড়া চাকুরী কথা বলে তার বিরুদ্ধে একাধিক জনের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। চাকুরীর আশায় শেষ সম্বল টুকু তাকে দিয়ে বর্তমানে নিজস্ব আমি। নিরপেক্ষ তদন্ত সাপেক্ষে উপজেলা প্রশাসনের কাছে এই প্রতারক প্রধান শিক্ষকের কাছ থেকে টাকা ফেরতের দাবী জানান তিনি ।

অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক রফিকুল ইসলাম এর সাথে কথা হলে তিনি বিষয়টি অকপটে স্বীকার করে বলেন, মিথ্যা কাগজপত্র উপস্থাপন করে আমার কাছ থেকে টাকা নেয়ার চেষ্টা করছে সুলতান আলী।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার এম.জিএম সারোয়ার হোসেন জানান, বিষয়টি শুরু থেকে আমি জানি। টাকা ফেরতের জন্য তাকে অনেকবার অনুরোধ করা হয়েছে। সে বার বার বিষয়টি অস্বীকার করে কালক্ষেপন করছে। তার বিরুদ্ধে ভুক্তভোগী মামলা করেও কোন সুরাহা পায়নি।