নিজস্ব প্রতিবেদকঃ নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার চরাঞ্চল বাঁশগাড়ি ও নিলক্ষায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে হতাহতের ঘটনার সাথে আওয়ামী লীগের কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব ও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। তাই এই বর্বরতম সংঘর্ষ ও হতাহতের দায় নেবে না আওয়ামী লীগ।

শনিবার বিকেলে নরসিংদী জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে  পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম হিরু (বীর প্রতিক) এ কথা বলেন।

নজরুল ইসলাম হিরু বলেন, শুধু মাত্র স্থানীয় নেতাকর্মীদের ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য বার বার এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। তবে আর কোন ছাড় দেওয়া হবে না। যারা আওয়ামী লীগের নাম ব্যাবহার করে বাড়ি-ঘরে হামালা, পাল্টা হামলা ও টেঁটা যুদ্ধের ঘটনা ঘটাচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে দল থেকে বহিষ্কারসহ দলীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নরসিংদী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন ভূইয়া, রায়পুরা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেকুর রহমান, রায়পুরা উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন বাচ্চু সহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।

অন্যদিকে এ ঘটনায় আটককৃত ১৩ জনের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছে রায়পুরা থানা পুলিশ। তবে নিহতের ঘটনায় দুই দিনেও থানায় কোন হত্যা মামলা দায়ের করা হয়নি। এদিকে হত্যা ও সংঘর্ষের ঘটনায় চরাঞ্চলে উত্তেজনা বিরাজ করছে। থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে পুরো এলাকায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে এলাকায় বিপুল পরিমান পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।