মানিক হোসেন:

টানা কয়েকদিনের বৃষ্টিতে দিনাজপুরের চিরিরবন্দদর উপজেলার জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে এর বিরূপ প্রভাব পড়েছে খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষগুলোর জীবনে।

বৃষ্টির কারণে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমে গেছে। আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত তিনদিনে দিনাজপুরে ৩০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। কিন্তু দেশের উত্তরাঞ্চলে বৃষ্টিপাত বেশি হওয়ায় চিরিরবন্দরে পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া দুটি নদী কাকড়া ও ইছামতি  নদীর পানি বৃদ্ধি পয়েছে।

৩০ সেপ্টেম্বর গতকাল সোমবার চিরিরবন্দর উপজেলার ঘুঘুড়াতলী মোড়ের ভ্যানচালক রহমান জানান,’তামান দিন (সারাদিন)  ভ্যান চালালে টাকা কামাই হবে সেটা দিয়েই তো হামাক (আমার)  বাড়ির তনে চাউল কিনবার নাগবে। বৃষ্টির ভয়োত (ভয়ে) ঘরোততে না বারালে তো না খায়য়ে থাকবার নাগবে। তাই মুই পলিথিনের কাগজ নিয়ে ভ্যান নিয়ে বারাইচু’। আবহাওয়াবিদরা বলছেন, বৃষ্টি আরও দুই -তিনদিন অব্যাহত থাকবে। চিরিরবন্দর সরকারি পাইলট  মডেল  স্কুলের প্রধান শিক্ষক সুভাস চন্দ্র রায় জানান, টানা তিনদিনের বৃষ্টিপাতের কারণে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বিগত দিনের তুলনায় কম হচ্ছে । তবে প্রত্যান্ত পল্লীতে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি আরও কম। গত তিনদিন ধরে গুড়িগুড়ি বৃষ্টি জনজীবনে বিরূপ প্রভাব ফেললেও  চিরিরবন্দর উপজেলা কৃষিবিদরা মনে করচ্ছেন কৃষিক্ষেত্রে বেশ উপকার হয়েছে।