মোহাম্মদ মানিক হোসেনঃ

আজ ৭ ডিসেম্বর, দিনাজপুর চিরিরবন্দর উপজেলার হানাদার মুক্ত দিবস। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাক বাহিনীর সঙ্গে মুক্তি বাহিনী ও মিত্রবাহিনীর মধ্যে তুমুল যুদ্ধে হানাদার বাহিনী পিছু হটতে থাকে।

চিরিরবন্দর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব মকসেদ আলী জানান, ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর কবল থেকে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে রানীরবন্দর আমতলীসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে তারা পলায়ন শুরু করলে চিরিরবন্দর মুক্ত হয়।

মুক্তিযোদ্ধারা অসীম সাহসে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীকে পরাজিত করে স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলন করেন পোস্ট অফিস রোডের চিরিরবন্দর থানা মোড়ে। স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারতের ফকিরগঞ্জ ঘেঁষা চিরিরবন্দর দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রবেশদ্বার হওয়ায় মিত্রবাহিনীর সমন্বয়ে মুক্তিযোদ্ধারা পাক সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে পাক সেনাদের বিপুল সংখ্যক সেনাসদস্য নিহত হয় ও চিরিরবন্দরের ইলিয়াস উদ্দিন নজিবর রহমান (ইস্টবেঙ্গল রেজিমেন্ট), আব্দুস সোবহান নেছার উদ্দীনসহ কয়েকজন শহীদ হন।

দিবসটি পালনে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে থাকে চিরিরবন্দর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল। বর্তমান সরকার এ উপজেলার অসংখ্য গণকবর, বদ্ধভূমিকে রক্ষণাবেক্ষণ ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।