সর্বউত্তরের জেলা পঞ্চগড়ে বাস ও ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দশজনে দাঁড়িয়েছে। আরও ২০ জনের মতো আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তাদের বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

গতকাল শুক্রবার রাত পৌনে আটটার দিকে উপজেলার ১০ মাইল বাজারের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে এজারুল, আজিজার, বিপুল, শাহীন, রেজাউল, সাদেকুল, রমনীর নাম পাওয়া গেছে। অন্যদের নাম এখনও পাওয়া যায়নি।

ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার নিরঞ্জন সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, পঞ্চগড় থেকে একটি বাস তেঁতুলিয়ার দিকে যাচ্ছিল। বিপরীত দিক থেকে আসা বৈদ্যুতিক খুঁটিবাহী একটি ট্রাকের সঙ্গে বাসটির সংঘর্ষ হয়। এতে দুমড়ে মুচড়ে যায় দুটি গাড়িই। ঘটনাস্থলেই পাঁচজনের মৃত্যু হয়। হাসপাতালে নেয়ার পর প্রাণ হারান আরও চার জন। এই ঘটনায় ওই সড়কে যান চলাচলও বন্ধ ছিল।

পঞ্চগড় এবং তেঁতুলিয়া দমকল বাহিনীর দুইটি ইউনিট ও পুলিশসহ স্থানীয় লোকজন হতাহতদের উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

গুরুতর আহত কয়েকজনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। হতাহতদের অধিকাংশই ভজনপুর তেঁতুলিয়া ও বাংলাবান্ধা এলাকার বাসিন্দা।

পঞ্চগড় সদর থানার ওসি আক্কাস আলী দশজন নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পঞ্চগড়ের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) গোলাম আযম বলেন, দুর্ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে পঞ্চগড়ের অতিরিক্ত জেলা হাকিম এহেতেশাম রেজাকে প্রধান করে পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটিকে আগামী তিনদিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

নিহত প্রত্যেক পরিবারকে নগদ ২০ হাজার টাকা করে দিয়েছে জেলা প্রশাসন। গতকাল রাত সাড়ে এগারোটায় উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়। বর্তমানে  ওই সড়কে যানচলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

সূত্র :ঢাকা টাইমস