প্রতীকী ছবি

নিজের দুই মেয়েকে খুন করে প্রতিবেশীদের কাছে অপহরণের গল্প ফেঁদেছিলেন এক তরুণী। পরে তিনি পুলিশের কাছে আসল ঘটনা স্বীকার করেছেন। তদন্তকারী কর্মকর্তাকে ওই নারী বলেছেন, স্বামীর চাকরি নেই খাবো কী? তাই বাচ্চাদের ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছি। এ ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের মুজফফরনগরে।

জানা গেছে, ওই নারীর নাম নাজমা। এ ঘটনায় পুলিশ কর্মকর্তারা এখনও হতভম্ব। মাত্র ২০ দিনের ফুটফুটে দু’টো মেয়ে, যমজ। একজন মা কিভাবে এমন নিষ্ঠুর হতে পারেন? এ ঘটনা সামনে আসতে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন এলাকাবাসীও।

গত শনিবারের ঘটনা এটা। এলাকাবাসীর দাবি, নিজের দুই মেয়েকে খুন করে প্রতিবেশীদের কাছে অপহরণের গল্প ফেঁদেছিলেন নাজমা।  প্রথমটায় বিশ্বাস করলেও, পরে সন্দেহ হয় স্থানীয় লোকজনের। তরুণীর কথা অসংলগ্ন ছিল, এমনকি সন্দেহজনক হাবভাব ছিল তার স্বামী ওয়াসিমেরও। রবিবার সকালে পুকুরে শিশুদের মরদেহ ভাসতে দেখে সঙ্গে সঙ্গেই পুলিশে খবর দেওয়া হয়। গ্রেপ্তার হন নাজমা ও ওয়াসিম।

পুলিশ জানিয়েছে, জেরায় প্রথমে নানা রকম মনগড়া কথা বললেও, শেষে ভেঙে পড়েন নাজমা।

তিনি জানান, গত কয়েক মাস ধরে তাঁর স্বামীর চাকরি নেই। দুবেলা খাওয়া জোটে না ঠিকমতো। তার ওপর সংসারে অশান্তি লেগেই আছে। প্রায়দিনই মদ্যপ অবস্থায় ওয়াসিম তাঁকে মারধর করতেন। মেয়েদের নিয়ে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যেতে বলতেন। অতিষ্ঠ হয়ে রাগের মাথায় মেয়েদের পুকুরে ছুঁড়ে ফেলেছিলেন তিনি। অপরাধ কতটা মারাত্মক করে ফেলেছেন, সেটা বুঝতে পেরে পরে প্রতিবেশীদের কাছে মেয়েদের অপহরণের গল্প সাজিয়েছিলেন।

পুলিশ জানিয়েছে, নাজমা ও ওয়াসিমের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্র : দ্য ওয়াল