বাঙালিয়ান ডেক্স:

 

আশুলিয়ায় চলন্ত বাস থেকে বাবাকে মারধর করে ফেলে দিয়ে মেয়েকে হত্যা করে ফেলে গেছে দুর্বৃত্তরা। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে এ ঘটনায় বাস বা জড়িত কেউ এখনও আটক হয়নি।

শুক্রবার রাতে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের আশুলিয়ার মরাগাঙ্গ এলাকা থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত জরিনা খাতুন (৪৫) সিরাজগঞ্জের চৌহালী থানার খাস কাওলীয়া গ্রামের আকবর আলীর মেয়ে।

আকবর আলী জানান, সকালে তারা দুইজন আশুলিয়ার গাজিরচট এলাকায় তার নাতনীর বাসায় বেড়াতে আসেন। সন্ধ্যায় সিরাজগঞ্জে বাড়ি ফিরে যাওয়ার উদ্দেশ্যে আশুলিয়ার ইউনিক থেকে টাঙ্গাইলগামী বাসে উঠেন বাবা ও মেয়ে। তবে বাসটি টাঙ্গাইল না গিয়ে কয়েক ঘণ্টা বিভিন্ন স্থান ঘুরে আবার আশুলিয়ার দিকে চলে আসে। পরে বাসটি আশুলিয়ার মরাগাঙ্গ এলাকায় পৌঁছলে তাকে (আকবর আলী) মারধর করে মোবাইল ফোন ও টাকা-পয়সা ছিনিয়ে নিয়ে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা।

এ সময় আহত অবস্থায় স্থানীয়দের সহযোগিতায় নিহতের বাবা টহল পুলিশকে ঘটনাটি জানালে তারা প্রায় দুই কিলোমিটার সামনে গিয়ে মহাসড়কের পাশ থেকে মেয়ে জরিনা খাতুনের মরদেহ উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় নিহতের মেয়ের স্বামী নুর ইসলাম বাদী হয়ে বাসের চালক ও হেলপারসহ অজ্ঞাতদের আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

বাস ও ঘটনায় জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে বলে জানিয়েছেন আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জাবেদ মাসুদ।

 

পরিবর্তন: